ঈদকে সামনে রেখে ছাত্রদল-যুবদলের বেপরোয়া চাঁদাবাজি শুরু

1 min read

আর কিছুদিন পরই মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর। এই উৎসবকে ঘিরে ব্যস্ত সময় পার করছে সবাই। আর এমন সময় দেশজুড়ে নতুন করে চাঁদাবাজি শুরু করেছে ছাত্রদল এবং যুবদল। ঈদ আসলে খরচ বেড়ে যায়। আর বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনগুলোর প্রধান আয়ের উৎসই হলো চাঁদাবাজি। আর সে কারণেই অতিরিক্ত টাকার প্রয়োজনে চাঁদাবাজির পরিমাণও বাড়িয়েছে তারা।

জানা গেছে, লন্ডন থেকে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব তারেক রহমানও দলের নেতাদের প্রতি জোর নির্দেশ দিয়েছেন। যাতে করে চাাঁদাবাজির পরিমাণ বাড়ানো হয়। আর সে কারণেই ছাত্রদল এবং যুবদল নেতাদের চাঁদাবাজি বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন সিনিয়র নেতা বলেন, প্রতিবছরই ঈদের আগে বাধ্যতামূলকভাবে তারেকেরে কাছে একটি বড় অংকের টাকা পাঠাতে হয়। এটাকে দলীয় পদ-পদবী রক্ষার টাকাও বলা যায়। এই টাকার যোগান সময়মত না পেলে নেতাকর্মীদের ওপর নেমে আসে তারকের ক্ষোভ। আর তাই এই টাকা যোগাড় করতে মরিয়া থাকেন দলের নেতাকর্মীরা। দলের এই দুঃসময়ে বেপরোয়া চাঁদিাবাজি ছাড়া আর কেনা উপায়ও নেই।

এসব কারণেই বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ বাড়ছে বলে মনে করেন বিএনপির নেতারা। বিএনপির এক নেতা এ প্রসঙ্গে বলেন, পুরনোদের মত নতুনরাও যত্রতত্র চাাঁদাবাজিতে জড়িয়ে পড়ছে। এটা দলের জন্য মোটেই ভালো হচ্ছে না। আজ হয়ত তারা তারেকের জন্য বাধ্য হয়ে চাঁদা তুলছে কিন্তু চাঁদাবাজির মজা যখন পেয়ে যাবে তখন কেউই তা ছাড়তে চাইবে না। আর এ কারণেই বিএনপির নামে চাঁদা নেয়ার অভিযোগ দিনদিন বেড়েই চলেছে।

ক্ষমতায় থাকতে যেমন খুশি তেন চাাঁদাবাজি করা যায়। কিন্তু ক্ষমতার বাইরে থেকেও এমন চাঁদাবাজি করার ক্ষমতাই বিএনপিকে দেশের শীর্ষ দুর্নীতিগ্রস্থ দল হিসেবে প্রমাণ করে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

+ There are no comments

Add yours