গাজায় ‘খুব সম্ভবত’ দুর্ভিক্ষ দেখা দিয়েছে: যুক্তরাষ্ট্র

1 min read

ফিলিস্তিনের গাজার উত্তরাঞ্চলের কিছু এলাকায় এখন ‘খুব সম্ভবত’ দুর্ভিক্ষ চলছে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। তিনি জানান, ইসরায়েলি অবরোধের কারণে ত্রাণবাহী ট্রাক ঢুকতে পারছে না। ফলে গাজায় ফিলিস্তিনের আরও সাহায্য পাওয়া বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র আগেই গাজায় দুর্ভিক্ষ ঘনিয়ে আসছে বলে সতর্ক করেছিল। গাজায় ত্রাণ প্রবেশ ও বিতরণে বাধা নিয়ে অভিযোগ করেছিল এবং দুর্ভিক্ষ আসন্ন এমন কথাও বলেছিল।

কিন্তু শুক্রবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের ওই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, দুর্ভিক্ষ সম্ভবত এরই মধ্যেই চলছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এ কর্মকর্তা বলেন, “আমরা যেমন আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বলতে পারি, দক্ষিণ ও মধ্য গাজায় দুর্ভিক্ষের চরম ঝুঁকি রয়েছে। তবে দুর্ভিক্ষ চলছে না। কিন্তু উত্তর গাজায় এর ঝুঁকি ও উপস্থিতি উভয়ই রয়েছে। অন্তত কিছু অঞ্চলে খুব সম্ভবত দুর্ভিক্ষ রয়েছে।”

চলতি মাসের শুরুর দিকে জাতিসংঘ-ভিত্তিক খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক বৈশ্বিক কর্তৃপক্ষ সতর্ক করে দিয়ে জানিয়েছিল, গাজায় দুর্ভিক্ষ আসন্ন। উত্তর গাজায় মে মাসের মধ্যে দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে এবং জুলাইয়ের মধ্যে গোটা গাজাজুড়ে তা ছড়িয়ে পড়তে পারে।

জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফান দুজারিক গাজায় ত্রাণ বিতরণের ক্ষেত্রে মারাত্মক চ্যালেঞ্জের কথা জানিয়েছেন। নিরপত্তার অভাব এবং ইসরায়েলের কাছ থেকে সহযোগিতার অভাবের কথা বলেছেন তিনি।

যদিও ইসরায়েল উল্টো বলছে,তারা গাজায় ত্রাণ প্রবেশ বাড়িয়েছে এবং ত্রাণ বিতরণে দেরির জন্য তারা দায়ী নয়। এ বিষয়টি জাতিসংঘ এবং মানবিক ত্রাণ সংস্থাগুলোর দায়িত্ব বলে তারা উল্লেখ করেছে এবং হামাস ত্রাণ চুরি করছে বলেও অভিযোগ করেছেন ইসরায়েলের কর্মকর্তারা।

গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে গাজা ভূখণ্ডে হামলা শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী। তারপর থেকে তাদের বিরতিহীন হামলায় ঘনবসতিপূর্ণ ছোট্ট এই ছিটমহলটিতে ৩২ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় গাজায় ইসরায়েলি হামলায় মোট ৭১ জন নিহত হয়েছে। গাজার দক্ষিণাংশে মিশরের সীমান্তবর্তী শহর রাফার একটি বাড়িতে বৃহস্পতিবার রাতে ইসরায়েলি বিমান হামলায় ১২ ফিলিস্তিনি নিহত হয়।

গাজার ২৩ লাখ বাসিন্দার অর্ধেকেরও বেশি ঘরবাড়ি হারিয়ে এই রাফাহ নগরীতে আশ্রয় নিয়ে আছে। কিন্তু সেখানেও অবিরাম বোমা হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল।

+ There are no comments

Add yours