বিএনপি অবৈধভাবে ক্ষমতায় বসতে চেয়েছিলো!

1 min read

নিউজ ডেস্ক: সরকারি দলের সংসদ সদস্যরা বলেছেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ভোটারদের প্রতি নয়, বিএনপি ভরসা করে বসেছিল অলৌকিক শক্তির ওপর, যারা তাদের এমনিতেই ক্ষমতায় বসাবে। বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতির ওপর তাদের নিজ দলের কর্মীরাই আস্থা হারিয়ে ফেলেছিল বলেই তারা নির্বাচনের মাঠে নামেনি, কোনো ঝুঁকি নেয়নি। আর জামায়াতকে ধানের শীষ প্রতীক দেওয়ায় দেশের জনগণ বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের ভোটাররা বিএনপিকে ব্যালটের মাধ্যমে প্রত্যাখ্যান করেছে।

বৃহস্পতিবার রাতে সংসদ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাব নিয়ে আলোচনাকালে তারা এসব কথা বলেন।

ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে অধিবেশনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, সরকারি দলের ইসরাফিল আলম, আক্তারুজ্জামান বাবু ও শফিকুল ইসলাম শিমুল।

আলোচনায় অংশ নিয়ে মুহাম্মদ ফারুক খান বলেন, রাষ্ট্রপতির ভাষণটি বর্তমান সরকারের উন্নয়ন ও অগ্রগতির গুরুত্বপূর্ণ দলিল। বাংলাদেশের অর্থনীতি সুদৃঢ় অবস্থানে দাঁড়িয়ে আছে। এবারের নির্বাচনে স্পষ্ট প্রমাণিত, দেশের সাধারণ মানুষ বিএনপি-জামায়াত-ঐক্যফ্রন্টের নেতিবাচক বক্তব্য গ্রহণ করেননি।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি অলৌকিক শক্তির ওপর ভরসা করে ক্ষমতায় বসতে চেয়েছিলো। বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতির ওপর তাদের নিজের কর্মীরা আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। তাই বিএনপির প্রার্থীরা একদিনের জন্য নির্বাচনী এলাকায় যাননি।

তিনি বলেন, ষড়যন্ত্রের মধ্যে জন্ম বলেই ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বিএনপি সবসময় ক্ষমতায় যেতে চায়। কিন্তু সেদিন আর নেই। বিএনপিকে টিকিয়ে রাখার স্বার্থে তাদের নির্বাচিত এমপিদের উচিত সংসদে এসে কথা বলা।

সাবেক মন্ত্রী ফারুক খান বলেন, পৃথিবীর বড় বড় প্রতিষ্ঠান যারা অর্থনীতিকে নিয়ন্ত্রণ করে, তারা সকলে একবাক্য স্বীকার করেছে এদেশের উন্নয়ন-অগ্রগতি ও প্রবৃদ্ধির হার বৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকলে ২০৩০ সালের মধ্যেই বাংলাদেশ বিশ্বের মধ্যে ২৮ তম শক্তিশালী দেশ হবে। বাংলাদেশের অগ্রগতি সারা বিশ্বই স্বীকার করেছে।

তিনি বলেন, সারা পৃথিবীর বড় দেশগুলো যখন রিফিউজি প্রবেশের গেট বন্ধ করে দিয়েছে, তখন মানবতার মা হিসেবে ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে দেশে আশ্রয় দিয়েছে, তাদের খাদ্য-চিকিৎসাসহ সবকিছুর যোগান দিচ্ছেন। তবে রোহিঙ্গা সমস্যা অবশ্যই করতে হবে। তিনি দেশের বড় বড় সমস্যাগুলো নিয়ে সংসদে অন্তত একদিন সাধারণ আলোচনার প্রস্তাব দেন তিনি।

ইসরাফিল আলম বলেন, বর্তমান সরকার বাংলাদেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে গেছে। সংসদীয় রীতিনীতিতে এমপিদের কাজই হলো সংসদে যোগ দিয়ে এলাকার মানুষের জন্য কাজ করা। নির্বাচনে ভরাডুবির পর এখন সংসদীয় গণতন্ত্রকে বিতর্কিত করতে সংসদে যোগ দিচ্ছে না বিএনপি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে আন্দোলন-সংগ্রাম কিংবা শক্তি প্রয়োগ করে একচুলও নড়াতে পারবে না। তাই ষড়যন্ত্র বাদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী যে ঐক্যের ডাক দিয়েছেন, তাতে সাড়া দিয়ে কাজ করুন, নইলে আপনাদের অস্তিত্বও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

আলোচনায় অংশ নিয়ে খুলনা জেলার পাইকগাছা-কয়রা উপজেলার সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকা ঘিরে একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার দাবি জানান আক্তারুজ্জামান বাবু। তিনি বলেন, বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনকে রক্ষায় বর্তমান সরকার বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে। এখন বনের আশপাশের এলাকায় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তুলে বড় ধরণের রাজস্ব আয় করা সম্ভব।

তিনি আরো বলেন, দুর্যোগের ঝুঁকিতে থাকা ওই অঞ্চলের বেড়ি-বাঁধগুলো সংস্কার করতে হবে। পর্যাপ্ত সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণ করা প্রয়োজন। কপোতাক্ষ নদসহ মৃতপ্রায় নদ-নদী, খাল ও পুকুর সংস্কারের উদ্যোগ নিতে হবে। এলাকার মানুষের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করার জন্য কপিলমুনি হাসপাতালের আধুনিকায় ও কয়রা সদরে নতুন হাসপাতাল নির্মাণের পাশাপাশি পাইকগাছার কৃষি কলেজ নির্মাণকাজ তরান্বিত, রাস্তাঘাট সংস্কার এবং ষ্টেডিয়াম ও সেতু নির্মাণের নির্মাণের দাবি জানান তিনি।

শফিকুল ইসলাম শিমুল বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাবিজয়ের একমাত্র দাবিদার উন্নয়ন-সমৃদ্ধির রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিএনপির মনোনয়ন বাণিজ্যে করেছে। যে প্রার্থী মহাদুর্নীতিবাজ তারেক রহমানকে বেশি টাকা দিয়েছে, তাকেই মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এ কারণে বিএনপির নেতাকর্মীরাই তাদের প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামেনি। বিএনপি আজ জনবিচ্ছিন্ন। দেশে আর কোনোদিন লুটেরা, যুদ্ধাপরাধী, স্বাধীনতাবিরোধীদের আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না, তা এবারের নির্বাচনে আবারো প্রমাণ হয়েছে।

+ There are no comments

Add yours